• ad-5

মায়ের দুধ শিশুর প্রথম টিকা

এই পোষ্টটি সংরক্ষণ করা অথবা পরে পড়ার জন্য নিচের Save to Facebook বাটনে ক্লিক করুন ।

‘মায়ের দুধে শিশুর হাসি, মা তোমাকে ভালবাসী’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারাদেশে বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ পালিত হয়েছে। একসময় নবজাতক শিশুর প্রথম খাবার হিসাবে অনেক মা-বাবা শিশুকে মধু খেতে দেন। তাদের ধারণা প্রথমে মধু পান করালে শিশুটি বড় হয়ে মিষ্টভাষী হবে। আর মেয়ে শিশু হলে নাকি তেতুলের পানি দেওয়া হত্। তবে যে উদ্দেশ্যে মধু খাওয়ানো হয় সে উদ্দেশ্য কতটুকু সফল হয় তা বিবেচনার বিষয় বৈকি ! তাইতো মধু বিক্রেতার ছেলেকেও কটু বাক্য ব্যবহার করতে দেখা যায়। ডাক্তারদের মতে প্রথম খাদ্য হিসেবে মধু দিলে শিশুর হজমে সমস্যা হতে পারে। তাই মধু নয় দুধ দেয়া উচিৎ। শিশু ভূমিষ্ট হওয়ার পর মায়ের বুকে যে দুধ আসে সেটি হচ্ছে শাল দুধ। গ্রামের মহিলারা অজ্ঞতা বশত এ দুধ ফেলে দেন। তারা মনে করেন এ ঘন দুধ খাওয়ালে শিশুর অমঙ্গল হবে। ডাক্তারি ভাষায় একে বলে “কেলোস্ট্রাম”। এতে প্রচুর শ্বেত রক্ত কণিকা থাকায় তা রোগের সংক্রামণকে প্রতিহত করে। এ দুধ পান করা শিশুরা পেট ও বুকের সমস্যায় কম ভোগে। তাই একে শিশুর প্রথম টিকা বলা যায়। বর্তমানে শিক্ষিত মায়েরা শালদুধ খাওয়ানোর ব্যপারে খুবই সচেতন। তাই তারা যত্ন সহকারে এই দুধ শিশুদের খাওয়ান।
আমরা বাঁচার জন্য খাই। অর্থাৎ খাদ্য ছাড়া বেঁচে থাকা সম্ভব নয়। সৃষ্টি জগতে মানব শিশু বেশী অসহায়। মুরগীর বাচ্চা ডিম থেকে ফুটেই খাবারের সন্ধান করে। মায়ের সাথে সাথে খেতে শিখে। গাভীর বাচ্চা জন্ম নিয়েই মায়ের দুধ খেয়ে তিড়িং-বিড়িং করে নাচে। মানব শিশু প্রথম কয়েকমাস খুবই অসহায় থাকে। এজন্য মা-বাবকে শিশুর খাবারের ব্যপারে সচেতন থাকতে হয়। বিশেষ করে মায়ের সাথে শিশুর সম্পর্ক নিবিড়। এ সময় মায়ের খাবারের ব্যপারেও খেয়াল রাখতে হবে। দেহের ক্যালসিয়াম ও প্রোটিনের ক্ষয় হওয়ার কারণে মাকে অন্যান্য সময়ের চেয়ে বেশি খেতে হবে। তার সাথে প্রতিদিন আধা লিটার দুধও খেতে হবে। বাচ্চাকে দুধ খাওয়ানোর আগে এক গ্লাস পানি খেলে সুবিধে হবে।

এ সময় মাকে অতিরিক্ত ঝাল খাওয়ালে চলবে না। ঘুমের (সেডেটিভ) এবং কোষ্ঠশোধনকারী ঔষুধ পোগিটিভ খাওয়া ভাল নয়। এই ঔষুধ বুকের দুধে ক্ষরিত হয়ে শিশুর ক্ষতি সাধন করে। এছাড়া মা যদি অত্যাধিক মসলা জাতীয় খাবার খান, পেঁপে, পেয়াজ, কপি ইত্যাদি খান তাহলে বাচ্চাদের পায়খানা নরম হবে।

মা যদি পুষ্টিমানযুক্ত খাবার খায় তাহলে শিশু পর্য়াপ্ত পরিমানে দুধ পাবে। এজন্য প্রসবের ঠিক পর পরই হালকা তরল জাতীয় খাবার দরকার। দুধ, শরবত, বিস্কুট, মিষ্টি এসব দেয়া যেতে পারে। এছাড়া অন্যান্য স্বাভাবিক খাবার ভাত, ডাল, শাক-সবজি, মাছ, মাংস, ডিম, দুধ, ফল খাওয়ানো যাবে। এ সময় ফল-ফলাদির মধ্যে আম, কলা, আতা, পেপে, আপেল খেতে পারবে। জেনে বা না জেনে মায়ের দুধ না খাইয়ে আমরা অনেকেই গরু, মহিষ, ছাগল কিংবা ডিবির দুধ শিশুকে খাইয়ে থাকি। নিচের সারনির দিকে তাকালে বোঝা যাবে আসলে গুনগত উপাদানে কোনটি সেরা। (প্রতি ১০০ গ্রাম হিসাবে)

ক্রমিক নং    উপাদান     গরু       মহিষ     ছাগল     কৌটা       মায়ের দুধ
১                 প্রোটিন       ৩.৫০   ৩.৬০    ৩.৫০     ২.৪৪      ৩.১০
২                 ল্যাকটোজ  ৪.৮০   ৫.৫০    ৪.৩০     ৮.১৯     ৭.৩০
৩                ক্যালসিয়াম  ১২০    ২১০     ১৭০       ১.৪        ২৮
৪                ফসফরাস    ৯০       ১৩০     ১২০      ৬৯          ৯৫
৫                আয়রন       ০.২      ০.২      ০.৩        ১.২        ১.৪
৬                চর্বি             ৩.৮০   ৭.০০    ৪.০০     ৩৮৬      ৩.১০
৭               এনার্জি        ৬৭         ১১৭    ৭২         ৭১.৫       ৬৫

অনেকে ব্যবহারে সুবিধা হওয়ার কারণে কৌটার দুধ খাওয়াতে পছন্দ করেন। কিন্তু কৌটার দুধ খাওয়ালে বিভিন্ন সমস্যা হতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে মা ও শিশুর বন্ধন ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। শিশুর পাতলা পায়খানা হতে পারে। শ্বাসনালীর প্রদাহ হতে পারে। বেশী বেশী এলার্জী বা বদহজম হতে পারে, বুদ্দিমত্তা কম হতে পারে এবং মা রক্ত স্বল্পতা, ডিম্বাশয় বা স্তনের ক্যান্সারে আক্রান্ত হতে পারেন।

জন্মের এক ঘন্টার মধ্যে মায়ের দুধ খাওয়ালে ভাল হয়। এক গবেষনায় দেখা গিয়েছে প্রতি বছর ৪ সপ্তাহের মধ্যে বিশ্বে ৪ মিলিয়নের নবজাতকের মৃত্যু ঘটে, এর মধ্যে ২২ শতাংশ মৃত্যু রোধ করা যায় এক ঘন্টার মধ্যে মায়ের দুধ দেয়ার মাধ্যমে। শুনতে অবাক লাগলেও সত্য যে, আমাদের দেশের অনেক মা সঠিক উপায়ে সন্তানকে দুধ খাওয়াতে পারেন না। ফলে শিশু পর্যাপ্ত পরিমানে দুধ পায়না। কেউ বলতে পারে মা দুধ দিবে-শিশু চুষে চুষে খাবে-এত আবার শিখার কি আছে ? হ্যা ডাক্তার, নার্স অথবা মুরব্বী মহিলাদের নিকট থেকে এব্যপারে শিখার অনেক কিছু আছে। তবে নিচের বিষয়গুলো খেয়াল রাখলে উপকার পাওয়া যাবে। ছোট শিশুর মাথা শরীর সোজা থাকবে, শিশুর মুখ মায়ের স্তনের দিকে ফেরানো থাকবে। মা শিশুর পুরো শরীর আগলে রাখবেন। এভাবে খাওয়ানোর সময় শিশু সঠিকভাবে দুধ পাচ্ছে কিনা ? শিশুর শরীর মায়ের শরীরের কাছে আছে কিনা ? শিশুর মুখ মায়ের বুকের দিকে পুরোপুরি ফেরানো কিনা ? খেয়াল রাখবেন। এসময় মুখে স্তনের বোটা এবং তার চারপাশের কালো অংশ ঢুকোনো থাকবে এবং শিশুর দুই গাল ফোলা থাকবে।

সুতরাং গুড়োদুধ কোম্পানীগুলোর চটকদার বিজ্ঞাপনে না ভুলে কষ্ট করে হলেও আপনার শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ান। এতে শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে। বুদ্ধি বিকশিত হবে। এতে শুধু শিশুর নয় মায়েরও অনেক সুবিধা রয়েছে। তাই যে টাকা দিয়ে গুড়ো দুধ কিনবেন তা দিয়ে মায়ের জন্য পুষ্টিকর খাবার কিনেন এবং ৬ মাস বয়স পর্যন্ত শুধুমাত্র মায়ের দুধ খাওয়ান। মনে রাখবেন এটি শিশুর জীবনের প্রথম টিকা।

ঔষধি গাছ সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

namaj.info bd news update 24 short film bd _Add
.
*** নিজে সুস্থ থাকি , অন্যকে সুস্থ রাখি । সাস্থ্য ও চিকিৎসা বিষয়ে যে কোন প্রশ্ন থাকলে জানাতে পারেন ! হোমিওপ্যাথি বিডি.কম একটি ফ্রী হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার জন্য তৈরী বাংলা ব্লগ সাইট । ***